8

 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, রাজধানীর প্রতিটি সড়ক সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় আনা হবে। এতে করে শহরের ট্রাফিক ও ক্রাইম নিয়ন্ত্রণসহ প্রায় সব কাজে বিশেষ সুবিধা পাওয়া যাবে।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমিতে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’র নবম মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ‘নিরাপদ সড়ক চাই’-এর প্রতিষ্ঠাতা চিত্র নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ঢাকাকে সেইফ সিটি করার জন্য আমরা উদ্যোগ নিচ্ছি। ক্যামেরার আওতায় নিয়ে আসবো পুরো ঢাকা। যদি আমরা পারি, এরপর চট্টগ্রাম ও রাজশাহী করবো। সেই লক্ষ্যে কাজ করছি। তাহলে অনেক জায়গায় আমরা সুবিধা পাবো। বিশেষ করে ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ, ক্রাইম নিয়ন্ত্রণসহ সবকিছুতেই সুবিধা পাবো।

তিনি আরো বলেন, নিরাপদ সড়ক সবাই চায়, আমিও চাই। এজন্য আমাদের মনমানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে। ট্রাফিক আইন মানতে হবে। সিটবেল্ট ব্যবহার ও সড়কে গতি নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। আমরা অনেকেই তা করি না। আইন মেনে চলার প্রবণতা নিয়ে কাজ করতে হবে। পুলিশ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করে আমরা জেলখানায় ঢুকালাম, জরিমানা করলাম, কিন্তু তার চেয়ে বেশি দরকার আমাদের সবার সচেতনতা।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, আমরা যদি সচেতন হই, আইন মেনে চলি, যদি বাস্তবতার নিরিখে কাজ করি, তবেই সফলতা আসবে এবং অবশ্যই আমরা তা পারব। সবাই সচেতন হলে দুর্ঘটনা কমবে ও মৃত্যুহার কমবে। নিরাপদ সড়ক চাই’র প্রস্তাবিত ১১১ দফা দাবি বাস্তবায়নে গঠিত টাস্কফোর্সের কাজ চলমান রয়েছে। করোনার কারণে আমরা কয়েকটি সভা করতে পারিনি। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক তাই আশা করছি দ্রুত কাজ এগিয়ে নেওয়া যাবে।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, এ দেশ আমাদের, তাই আমাদেরই এগুলো করতে হবে। সেজন্যই ঢাকার বাইরে এতগুলো শাখা করেছি, যেন তারা সবাই নিজ নিজ এলাকার সড়ক নিরাপদ রাখতে পারে। আমরা চাই সড়ক দুর্ঘটনায় সবসময় নিজেকে আগে দেখতে হবে, পরিবর্তন হতে হবে। মূল কাজটা আমাদেরই করতে হবে। তাই আমাদের সবাই মিলে প্রচেষ্টা চালাতে হবে। এ সময় তিনি নিরাপদ সড়ক চাইয়ের ১১১টি সুপারিশ বাস্তবায়নেরও দাবি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.