yyyy image 1630600627

নোয়াখালীর সেনবাগে প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ মামলার আসামি মো. আইমন ভূঁইয়াকে (২৬) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে তাকে নোয়াখালী চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এরআগে বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) রাতে অভিনব কায়দায় প্রেমের ফাঁদে ফেলে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সি-বিচ থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আইমন উপজেলার কাদরা ইউনিয়নের নন্দীর পাড় এলাকার মো. মোস্তফার ছেলে।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল বাতেন মৃধা বলেন, ‘বান্ধবীর জন্মদিনের অনুষ্ঠানে এক প্রবাসীর স্ত্রীকে (২২) ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়। মো. আইমন ভূঁইয়া ওই মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। তাকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।’

এসআই মো. তারেক আরো জানান, আলোচিত ধর্ষণ ঘটনার পর থেকে পুলিশ আসামিদের গ্রেপ্তারের জন্য দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ব্যর্থ হয়। এরপর কৌশল পরিবর্তন করে এক নারীকে দিয়ে আসামিদের সঙ্গে প্রেমের ফাঁদে ফেলে অভিযান সফল হয়। নারীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ সময় কাটানোর লোভে চট্রগামের সী-বিচ এলাকায় বুধবার সন্ধ্যায় আয়মন ভূঁইয়া দেখা করতে এসে পুশিশের জালে আটকা পড়েন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ আগস্ট রাতে ভুক্তভোগী গৃহবধূ জন্মদিনের অনুষ্ঠানে তার বান্ধবীর বাড়িতে যান। কেক কাটার পর স্থানীয় লেদু মিয়ার ছেলে ফরহাদ (২৫) পাঁচ-সাতজন সহযোগী নিয়ে ওই বাড়িতে যান। এসময় তারা অনুষ্ঠানে আসা গৃহবধূর সঙ্গে রাজন নামের এক যুবকের অনৈতিক সম্পর্ক আছে বলে অভিযোগ তোলেন। পরে তাদের আটক করে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন।

এরপর তারা রাজনকে ছেড়ে দিলেও গৃহবধূকে আটকে রাখেন। পরে সহযোগীদের পাহারায় রাতে ফরহাদ তাকে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় ২৩ আগস্ট গৃহবধূ সেনবাগ থানায় বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.